৭ শ্রাবণ ১৪২৪, শনিবার ২২ জুলাই ২০১৭, ১২:৪৬ অপরাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

স্বরচিত্রের নতুন আবর্তন আগস্টে

স্বরচিত্রের নতুন আবর্তন আগস্টে

স্বরচিত্র আবৃত্তি চর্চা ও বিকাশ কেন্দ্রের প্রমিত উচ্চারণ ও আবৃত্তি বিষয়ক চার মাসব্যাপী কর্মশালার নতুন আবর্তন আগস্টে শুরু হচ্ছে। 

মেঘনা মাঝি

মেঘনা মাঝি

প্রিয়তমা,
জানি আজ তুমি আর ডাকে সাড়া দিবে না। আমার প্রিয়া ডাক বুঝি আকাশে বাতাসে ধ্বনি-প্রতিধ্বনিত্ব হয়ে পূনরায় মুখেই ফিরে আসবে। তোমার হৃদয় বুঝি সে ডাক আর ছুঁয়ে যাবে না। কারণ তোমার দিলাকাশ আজ সন্দেহ আর অভিমানের মেঘে ঢাকা। তুমি আমায় বিশ্বাস করলে না, বিশ্বাস আছে বলেই নির্মিত হয়েছিল ভালোবাসার তাজমহল।

সাত গুণী পেলেন শিল্পকলা পদক

সাত গুণী পেলেন শিল্পকলা পদক

শিল্পকলা পদক ২০১৬ প্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। সাত বিভাগে এ বছর পদক পেয়েছেন- নৃত্যকলায় মোঃ গোলাম মোস্তফা খান, ফটোগ্রাফিতে 

গুণীজনদের শিল্পকলা পদক প্রদান করবেন রাষ্ট্রপতি

গুণীজনদের শিল্পকলা পদক প্রদান করবেন রাষ্ট্রপতি

দেশের শিল্প-সংস্কৃতি ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য সাত গুণীজনকে ‘শিল্পকলা পদক’ প্রদান করা হবে বৃহস্পতিবার।

হুমায়ূন স্মরণ

হুমায়ূন স্মরণ

আজ ১৯ জুলাই ২০১৭, বুধবার কিংবদন্তি কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১২ সালের এই দিনে মাত্র ৬৪ বছর বয়সে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে নিউইয়র্কে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন বিংশ শতাব্দীর জনপ্রিয় এ বাঙালি ক্ষণজন্মা কথাসাহিত্যিক।

হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুবার্ষিকী বুধবার

হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুবার্ষিকী বুধবার

নন্দিত কথাসাহিত্যিক, চলচ্চিত্র ও নাটক নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী ১৯ জুলাই বুধবার। ২০১২ সালের এ দিনে ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে তিনি নিউ ইয়র্কে চিকিৎসাধীন মারা যান।

৭ গুণী পেলেন শিল্পকলা পদক ২০১৬

৭ গুণী পেলেন শিল্পকলা পদক ২০১৬

শিল্পকলা একাডেমির ‘শিল্পকলা পদক-২০১৬’ ঘোষণা করা হয়েছে। সাত ক্যাটাগরিতে এ বছর পদক পেয়েছেন পবিত্র মোহন দে (যন্ত্রসংগীত), মো. গোলাম মোস্তফা খান (নৃত্যকলা), গোলাম মুস্তফা (ফটোগ্রাফি), কালিদাস কর্মকার (চারুকলা), সিরাজউদ্দিন পাঠান (লোকসংস্কৃতি), সৈয়দ জামিল আহমেদ (নাট্যকলা) ও মিতা হক (সংগীত)।

কবি বিষ্ণু দে’র জন্মদিন মঙ্গলবার

কবি বিষ্ণু দে’র জন্মদিন মঙ্গলবার

বিষ্ণু দে আধুনিক বাংলা সাহিত্যের একজন বিখ্যাত কবি। রবীন্দ্রনাথের পরে আধুনিক বাংলা কবিতায় নতুন ধারা সৃষ্টিতে তারও ভূমিকা আছে। ১৩৩০ সনের পর বাংলা কবিতায় নতুন ভাব ও নতুন ভঙ্গি দেখা দেয়। প্রধানত যারা এই নতুন ভাবভঙ্গি এনেছিলেন, তাদের বলা হয় তিরিশের কবি। বিষ্ণু দে এদের একজন। অন্যরা হলেন জীবনানন্দ দাশ, সুধীন্দ্রনাথ দত্ত, অমিয় চক্রবর্তী ও বুদ্ধদেব বসু।

‘মানব বংশের অলঙ্কার’ বুদ্ধিবৃত্তিক উড়াল

‘মানব বংশের অলঙ্কার’ বুদ্ধিবৃত্তিক উড়াল

এ-ও কি সম্ভব?

‘বুকের বাঁপাশ ঘেঁষে চলে যাচ্ছে
মৃত্যুর দ্রাঘিমা, তবু 
আমি-তুমি-আমরা-তাবৎ মানব বংশ
অশুভ’র কাছে-
প্রেম ভিক্ষাকরি
প্রাণ-ভিক্ষা করি।