৩০ শ্রাবণ ১৪২৫, বুধবার ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩:০২ পূর্বাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

শুরু হলো উশু প্রতিযোগিতা


১৭ জুলাই ২০১৮ মঙ্গলবার, ০৩:৪৭  পিএম

নতুনসময়.কম


শুরু হলো উশু প্রতিযোগিতা

ওয়ালটন গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় ও বাংলাদেশ উশু অ্যাসোসিয়েশনের ব্যবস্থাপনায় মঙ্গলবার (১৭ জুলাই) থেকে শুরু হয়েছে ‘ওয়ালটন দ্বিতীয় জাতীয় মহিলা উশু চ্যাম্পিয়নশিপ-২০১৮।’ তিনদিন ব্যাপী এই প্রতিযোগিতা বৃহস্পতিবার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হবে।

প্রতিযোগিতার বিষয়ে বিস্তারিত জানানোর জন্য গতকাল সোমবার (১৬ জুলাই) বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর (গেমস এন্ড স্পোর্টস) এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), বাংলাদেশ উশু অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহ ভূঁইয়া, টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান শামীম খান টিটো, সদস্য সচিব রেহানা পারভীন ও কো-স্পন্সর পোকারী সোয়েটের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. মনির হোসেন সহ অন্যান্যরা।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় এবারের এই ওয়ালটন দ্বিতীয় জাতীয় মহিলা উশু প্রতিযোগিতায় ১৫টি জেলা, সার্ভিসেস দল ও সংস্থা অংশ নিবে। সেগুলো হল- বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী, বাংলাদেশ ডাক বিভাগ, রাজশাহী জেলা, মাদারীপুর জেলা, চট্টগ্রাম জেলা, ফরিদপুর জেলা, পটুায়াখালী জেলা, কুড়িগ্রাম জেলা, পাবনা জেলা, নড়াইল জেলা, ঢাকা জেলা, রাজশাহী বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড ও কক্সবাজার জেলা।

এবারের এই প্রতিযোগিতা আয়োজনের লক্ষ্য দেশব্যাপী নারী খেলোয়াড় তৈরি করা এবং তাদেরকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মানের খেলোয়াড় হিসেবে গড়ে তোলা। পাশাপাশি এসব খেলোয়াড়দের বিভিন্ন সরকারি সংস্থা ও সার্ভিসেস বাহিনীতে কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করে দেওয়া।

প্রতিযোগিতার পদকজয়ীদের মেডেল ও সার্টিফিকেট দেওয়া হবে। এছাড়া সেরাদের দেওয়া হবে ওয়ালটন গ্রুপের পক্ষ থেকে হোম অ্যাপ্লায়েন্স।

সংবাদ সম্মেলনে ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর গেমস এন্ড স্পোর্টস এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) বলেন, ‘ওয়ালটন গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় প্রথম জাতীয় মহিলা উশু চ্যাম্পিয়নশিপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয়বারের মতো এই টুর্নামেন্টের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছি। উশুর আন্তর্জাতিক ফল বেশ ভালো। ভালোভাবে তাদের নার্সিং ও পৃষ্ঠপোষকতা করা গেলে উশুর উজ্জ্বল ভবিষ্যত অপেক্ষা করছে। এক সময় হয়তো উশুর মাধ্যমে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। আমরা বিশ্বাস করি, তরুণ-তরুণীদের খেলাধুলার সঙ্গে সম্পৃক্ত রাখতে পারলে তাদের মাদক ও অন্যান্য ব্যাড কোয়ালিটিস থেকে দূরে রাখা সম্ভব। আর আত্মরক্ষার কৌশল হিসেবে উশু প্রত্যেক মেয়েদেরই শেখা উচিত। আমি এই প্রতিযোগিতার সর্বাঙ্গীন সাফল্য কামনা করছি।’

ওয়ালটন গ্রুপকে ধন্যবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ উশু অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহ ভূঁইয়া বলেন, ‘দ্বিতীয়বারের মতো এই প্রতিযোগিতায় পৃষ্ঠপোষকতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ায় ওয়ালটন গ্রুপকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আশা করব ভবিষ্যতেও তারা আমাদের সঙ্গে থাকবে। উশু সর্বমোট ৪০টি স্বর্ণ পদকের খেলা। অলিম্পিকে ও ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে ৩৬ থেকে ৩৮টি পদকের খেলা হয়। এই খেলাটির মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে অনেক পদক আনা সম্ভব। অনেকেই জানে না উশু খেলাটি খুবই ব্যাপক। ঠিকমতো পৃষ্ঠপোষকতা পেলে বাংলাদেশের উশু অনেক দূর যেতে পারবে।’

মান্দারিন ভাষা থেকে চাইনিজ ‘উশু’ শব্দটির উৎপত্তি। ‘উ’ এর অর্থ মার্শাল এবং ‘শু’ এর অর্থ আর্ট। উশু এক ধরণের মার্শাল আর্ট। সাধারণত সিনেমার মারপিটের সময় যে কৌশলগুলো দেখানো হয় সেগুলো উশু। চীনের জাতীয় খেলা ও সংস্কৃতির অংশ হচ্ছে উশু। চীনে প্রায় ৩০০ রকমের কুংফুর স্টাইল রয়েছে। সেগুলোকে একিত্রভূত করে বিজ্ঞান ভিত্তিক একক স্টাইলে আনা হয়েছে উশুতে।

এমএ

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: