১০ আষাঢ় ১৪২৪, শনিবার ২৪ জুন ২০১৭, ৮:০১ অপরাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

শওকত ওসমানের জন্মশতবার্ষিকী


০২ জানুয়ারি ২০১৭ সোমবার, ১২:৫৯  পিএম

নতুনসময়.কম


শওকত ওসমানের জন্মশতবার্ষিকী

বাংলা কথাসাহিত্যে শওকত ওসমান বিশ শতকের শ্রেষ্ঠ বাঙালীদের একজন।  উপন্যাস ও গল্পের মাধ্যমে তিনি এদেশের সাহিত্য ভুবনকে সমৃদ্ধ করেছেন । সাম্প্রদায়িক ও মৌলবাদবিরোধী এই মানুষটি আজন্ম শোষকের বিরুদ্ধে কলম ধরেছেন।

বাংলা সাহিত্যের খ্যাতনামা এই কথাশিল্পীর জন্মশতবার্ষিকী আজ। ১৯১৭ সালের ২ জানুয়ারি তিনি অবিভক্ত বাংলার পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার সবলসিংহপুরে জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রকৃত নাম শেখ আজিজুর রহমান। তার পিতার নাম শেখ মোহাম্দ ইয়াহিয়া।

ছাত্রজীবন থেকে শওকত ওসমান বৃটিশ শাসনবিরোধী ও বাঙালি জাতীয়তাবাদ,বাঙালি শিল্প-সংস্কৃতির বিভিন্ন ঘরানায় সাহিত্য চর্চা ও লেখালেখি শুরু করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৪১ সালে বাংলাসাহিত্যে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর তিনি ঢাকায় চলে আসেন। ঢাকায় শিক্ষকতার মধ্যদিয়ে পেশাগত জীবন শুরু করেন।

শওকত ওসমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপনে যৌথভাবে দুই দিনব্যাপী উৎসবের আয়োজন করেছে কথাশিল্পী শওকত ওসমান স্মৃতি পরিষদ ও বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় সুফিয়া কামাল জাতীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে উৎসবের উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট লেখক, রবীন্দ্র গবেষক ও প্রবন্ধকার আহমদ রফিক। আলোচনায় অংশ নেন ব্যারিস্টার আমির-উল ইসলাম, মহীউদ্দীন খান আলমগীর, হায়দার আকবর খান রনো, শিল্পী রফিকুন নবী ও সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম।

এরপর বিকেল ৪টায় শুরু হবে প্রথম দিনের অনুষ্ঠানমালার দ্বিতীয় পর্ব। এ পর্বে শওকত ওসমানের জীবন ও সাহিত্যকর্ম নিয়ে আলোচনা করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান এবং এ্যাপেক্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর। সন্ধ্যায় থাকবে সঙ্গীত, আবৃত্তি ও নাটক পরিবেশনা এবং চলচ্চিত্র প্রদর্শনী।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে আলোচনা সভা। আলোচনা করবেন অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, অধ্যাপক এমিরেটাস ড. আনিসুজ্জামান, উদীচীর সাবেক সভাপতি ও সংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানী, অর্থনীতিবিদ আবুল বারকাত, শিল্পী হাসেম খান এবং সেলিনা হোসেন। দ্বিতীয় দিন সন্ধ্যায়ও থাকবে সঙ্গীত, আবৃত্তি ও নাটক পরিবেশনা এবং চলচ্চিত্র প্রদর্শনী।

এছাড়া শওকত ওসমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে বছরব্যাপী নানা কর্মসূচীর আয়োজন করেছে জন্মশতবর্ষ উদযাপন জাতীয় কমিটি। আজ সোমবার বিকেল ৪টায় জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে এ কর্মসূচীর উদ্বোধন হবে।

এতে প্রধান অতিথি থাকবেন সরকারী হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মহীউদ্দীন খান আলমগীর। বিশেষ অতিথি থাকবেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান র আ ম উবায়দুল মুক্তাদির চৌধুরী। আলোচনা করবেন জাতীয় কবিতা পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, গণসঙ্গীত সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ফকির আলমগীর প্রমুখ। পিতৃস্মৃতিচারণ করবেন অধ্যাপক বুলবন ওসমান। শওকত ওসমান স্মরণে নিবেদিত কবিতা পাঠ করবেন কবি কাজী রোজী, মুহম্মদ নূরুল হুদা, অসীম সাহা আসলাম সানী প্রমুখ।

তার রচিত উপন্যাস ক্রীতদাসের হাসি আজও যে কোন স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে গণজাগরণের দিশারী। তার বহুল আলোচিত ও সমাদৃত জননী উপন্যাসটি ইংরেজী ভাষায় অনূদিত হয়ে ঠাঁই করে নিয়েছে বিশ্বসাহিত্যে।

শওকত ওসমান প্রধানত ঔপন্যাসিক ও গল্পকার হিসেবে খ্যাতি কুড়ান। তবে এর বাইরেও প্রবন্ধ, নাটক, রম্য রচনা, স্মৃতিকথা ও শিশুতোষ গ্রন্থ রচনায়ও রেখেছেন মুনশিয়ানার ছাপ। অনুবাদেও ছিলেন সিদ্ধহস্ত। বিভিন্ন ভাষার অসংখ্য উপন্যাস, গল্প ও নাটক অনুবাদ করেছেন। তার উল্লেখযোগ্য উপন্যাসগুলো হলো- জননী, ক্রীতদাসের হাসি, সমাগম, চৌরসন্ধি, রাজা উপাখ্যান, জাহান্নাম হইতে বিদায়, রাজপুরুষ, নেকড়ে অরণ্য, আর্তনাদ ইত্যাদি। গল্পগ্রন্থের মধ্যে রয়েছে জুনু আপা ও অন্যান্য গল্প, মনিব ও তাহার কুকুর, ঈশ্বরের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রভৃতি। নাটকের মধ্যে রয়েছে আমলার মামলা ও পূর্ণ স্বাধীনতা চূর্ণ স্বাধীনতা।

সৃষ্টিশীলতার নেশায় সব সময় নিজেকে বিভোর রেখেছিলেন শওকত ওসমান। সাহিত্যকর্মে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি আদমজী পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদক, স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার, প্রেসিডেন্ট প্রাইড অব পারফরমেন্স পদক, নাসিরুদ্দিন স্বর্ণপদক, মুক্তধারা পুরস্কার, ফিলিপস সাহিত্য পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন।

১৯৮৮ সালের ১৪ মে পৃথিবী থেকে বিদায় নেন শওকত ওসমান। জীবন ও মৃত্যুর মাঝের দীর্ঘ সময় বিচরণ করেছেন সাহিত্যে আঙিনায়। সমৃদ্ধ করেছেন বাংলা সাহিত্য ভান্ডারকে।

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: