৮ আষাঢ় ১৪২৫, শুক্রবার ২২ জুন ২০১৮, ১০:৪৬ অপরাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

রোহিঙ্গাদের হত্যা-ধর্ষণের অভিযোগ অস্বীকার সেনাবাহিনীর


১৪ নভেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার, ১০:০৫  এএম

নতুনসময়.কম


রোহিঙ্গাদের হত্যা-ধর্ষণের অভিযোগ অস্বীকার সেনাবাহিনীর

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা সংকট ইস্যুতে একটি তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। সেখানে এই সংকটের কোনোরকম দায় নিজেদের ঘাড়ে নেয়নি সেনারা।

প্রতিবেদনে কোনো রোহিঙ্গাকে হত্যা, বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া, নারীদের ধর্ষণ বা লুটপাটের বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করা হয়েছে।

রোহিঙ্গা জনগণকে হত্যা, তাদের গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়া, রোহিঙ্গা নারীদের ধর্ষণ, ভয়াবহ লুটপাট ও সীমাহীন নির্যাতনের সব অভিযোগই ওই তদন্ত প্রতিবেদনে প্রত্যাখ্যান করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।

বিবিসি বলছে, তাদের প্রতিবেদকরা রাখাইনে যা দেখেছে, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এই প্রতিবেদনের সঙ্গে তা সাংঘর্ষিক। রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে দেশটির সেনাদের বর্বর অভিযানকে ‘জাতিগত নিধন’ বলে চিহ্নিত করেছে জাতিসংঘ। বহু আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ও অধিকার সংস্থা রোহিঙ্গা পরিস্থিরি জন্য মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে দায়ী করেছে। কিন্তু এখন তারা সব দায় এড়িয়ে রোহিঙ্গাদের ঘাড়েই দোষ চাপাচ্ছে। 

লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলেছেন, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এই প্রতিবেদন পরিকল্পিত ‘ধবলধোলাই’। রাখাইনে জাতিসংঘের বিভিন্ন স্তরের পর্যবেক্ষণ ও তদন্ত দলকে প্রবেশের অনুমতি দিতে মিয়ানমারের ওপর আহ্বান জানিয়েছে অ্যামনেস্টি।

রাখাইনে রোহিঙ্গা গ্রামগুলোতে গণমাধ্যম কর্মীদের প্রবেশ করতে দেওয়া হয় না বললেই চলে। যদি কোনো মিডিয়াকে প্রবেশের অনুমতি দেওয়াও হয়, তবে তাদের হাতে কড়া নির্দেশিকা ধরিয়ে দেওয়া হয়। নির্ধারিত সময়, স্থান ও লোকজন ছাড়া সাংবাদিকদের সেখানে যেতে দেওয়া হয় না। 

বিবিসির দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াবিষয়ক প্রতিবেদক জোনাথন হেড রাখাইন সফর শেষে যে প্রতিবেদন করেছিলেন, তাতে সেনবাহিনীর বর্বর নির্যাতনের তথ্য ও চিত্র উঠে এসেছিল। তিনি নিরাপত্তা বাহিনীর সামনে স্থানীয় বৌদ্ধরা রোহিঙ্গাদেররবাড়ি জ্বালিয়ে দিচ্ছে- এমন চিত্রও পেয়েছিলেন।

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: