৪ আষাঢ় ১৪২৫, সোমবার ১৮ জুন ২০১৮, ৫:২২ অপরাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

ভোলার গ্যাস যাচ্ছে রংপুর, বরিশাল ও খুলনায়


১১ মার্চ ২০১৮ রবিবার, ১০:১১  এএম

নতুনসময়.কম


ভোলার গ্যাস যাচ্ছে রংপুর, বরিশাল ও খুলনায়

দেশের উত্তর ও দক্ষিণে গ্যাস সঞ্চালন ও বিতরণ নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে ১০ হাজার ৮০০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। সরকারের দাবি এই প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে রংপুর, বরিশাল ও খুলনায় শিল্পের বিকাশ হবে।

জানা গেছে, ভোলায় নতুন গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কৃত হয়েছে। এই গ্যাস ভোলা থেকে বরিশাল হয়ে খুলনায় নেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ জন্য প্রায় ২ হাজার ৬০০ কোটি টাকার দুটি গ্যাস পাইপলাইন স্থাপন করবে জিটিসিএল।

এছাড়া দেশের অন্য অঞ্চল থেকে খুলনায় গ্যাস নিতে ৬ হাজার ৪২৭ কোটি টাকার আরো তিনটি পাইপলাইন প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে জিটিসিএল। ভোলার গ্যাস ছাড়াও আমদানি করা এলএনজি (তরল প্রাকৃতিক গ্যাস) পাইপলাইনের মাধ্যমে এ অঞ্চলে যাবে।

এদিকে গ্যাসের জন্য দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করছে উত্তরের রংপুরবাসী। অবশেষে তাদের দাবি পূরণ হতে যাচ্ছে। রংপুর বিভাগে গ্যাস সরবরাহের জন্য সঞ্চালন ও বিতরণ নেটওয়ার্ক নির্মাণে প্রায় ১৮০০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত উন্নয়ন প্রস্তাবনা (ডিপিপি) জ্বালানি বিভাগে পাঠিয়েছে গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেড (জিটিসিএল)।

প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী জানান, সরকারের লক্ষ্য দেশের সব অঞ্চলের সুষম উন্নয়ন। উন্নয়নের অন্যতম পূর্বশর্ত জ্বালানি। তাই উত্তর ও দক্ষিণের জেলাগুলোতে গ্যাস পৌঁছানো জরুরি। ভোলায় পর্যাপ্ত গ্যাস আছে। এর মজুদ আরো বাড়বে। এখান থেকে প্রথমে বরিশাল ও পরে খুলনায় নেয়া হবে। বগুড়া পর্যন্ত সঞ্চালন লাইন আছে। রংপুরে শিল্পের বিকাশের জন্য এই পাইপলাইন সম্প্রসারণ করা প্রয়োজন।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে দ্বীপ জেলা ভোলার ভেদুরিয়ায় নতুন গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কৃত হয়েছে। এছাড়া এখানকার পুরনো শাহবাজপুর গ্যাসক্ষেত্রের মজুদও বেড়েছে। সব মিলিয়ে ভোলায় প্রায় দেড় ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী এই গ্যাস বরিশাল ও খুলনায় নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুসারে পরিকল্পনা বাস্তবায়নে দুটি প্রকল্প প্রণয়ন করেছে জিটিসিএল। একটি হলো ৬৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের ভোলা থেকে বরিশাল সঞ্চালন লাইন প্রকল্প। ১ হাজার ১০০ কোটি টাকায় ২৮ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপলাইন বসবে, যা দিয়ে ২৫ কোটি ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা যাবে। এই লাইন নির্মাণের সময় ধরা হয়েছে এ বছরের এপ্রিল থেকে আগামী বছরের জুন পর্যন্ত। আরেকটি বরিশাল থেকে খুলনা পর্যন্ত ৩০ ইঞ্চি ব্যাসের ১০৫ কিলোমিটার একটি পাইপলাইন বসবে। এক হাজার ৪৭১ কোটি টাকার এই পাইপলাইন সর্বোচ্চ ৪০ কোটি ঘনফুট গ্যাস সঞ্চালন করতে পারবে। আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় হিসাব করা হয়েছে।

এদিকে বর্তমানে উত্তরাঞ্চলের বগুড়া পর্যন্ত গ্যাস পাইপলাইন রয়েছে। বগুড়া থেকে রংপুর বিভাগে গ্যাস নিতে দেড় হাজার কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিয়েছে জিটিসিএল। অর্থের উৎস ধরা হয়েছে জ্বালানি নিরাপত্তা তহবিল। সৈয়দপুর পর্যন্ত প্রস্তাবিত এ প্রকল্পের আওতায় ২৪ ইঞ্চি ব্যাসের ১৫০ কিলোমিটার পাইপলাইন বসবে।

এই সঞ্চালন লাইন দিয়ে ২৫ কোটি ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ সম্ভব হবে। বাস্তবায়নকাল ধরা হয়েছে এ বছরের জানুয়ারি থেকে আগামী বছরের জুন পর্যন্ত। রংপুর ও নীলফামারী জেলার বিভিন্ন অংশে এই গ্যাস সরবরাহের জন্য ১৬৮ কোটি টাকার প্রকল্প নেয়া হয়েছে।

এর আওতায় মোট ৭৫ কিলোমিটার বিতরণ লাইন বসবে। এর মধ্যে আট ইঞ্চি ব্যাসের ২৪ কিলোমিটার, ১০ ইঞ্চি ব্যাসের ৪ কিলোমিটার, ১২ ইঞ্চি ব্যাসের ২৫ কিলোমিটার এবং ১৬ ইঞ্চ ব্যাসের ৪২ কিলোমিটার লাইন স্থাপন করা হবে। জ্বালানি নিরাপত্তা তহবিলের অর্থে এই পাইপলাইন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

পিডি

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: