৭ শ্রাবণ ১৪২৫, রবিবার ২২ জুলাই ২০১৮, ১২:২০ অপরাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

পরিবারের স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে পারলেন তারা


১২ এপ্রিল ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০৩:১৩  পিএম

আইয়ূব পক্ষী, বেনাপোল করেসপন্ডেন্ট

নতুনসময়.কম


পরিবারের স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে পারলেন তারা

পরিবারের মাঝে একটু স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে কেউ ৫ বছর কেউ ৩ বছর আগে তিনজন পাড়ি জমিয়েছিল সুদূর মালয়েশিয়ায়। অনেকে জমি বিক্রি করে গিয়েছিল সেখানে। কাজ করে দেশে টাকা পাঠাবে। পরিবারের সবাই ভাল থাকবে। কিন্তু বিধিবাম এক নিমিষে সব স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়ে গেছে তরিকুল, আজমিন ও সালাউদ্দিন এর পরিবারে মাঝে।

মালয়েশিয়ায় একটি বিল্ডিংয়ে কাজ করার সময় লিফট ছিঁড়ে এই তিন বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। ৮ এপ্রিল রাত আনুমানিক ৮টা ৪০ মিনিটে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মালয়েশিয়ায় কর্মরত অন্যান্য বাংলাদেশীরা বিষয়টি তাদের পরিবারে জানানোর পর থেকে তাদের স্বজনদের আহাজারিতে এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া। বাক রুদ্ধ হয়ে পড়েছে স্ত্রী সন্তানেরা। নিহত তিন জনই যশোরের সন্তান।

নিহতরা হলেন যশোরের বেনাপোলের ধান্যখোলা গ্রামের আয়নাল হকের ছেলে তরিকুল ইসলাম তরিক (৩২), শার্শার শ্যামলাগাছি গ্রামের আবু তালেবের ছেলে আজমিন হোসেন (২৬) ও ঝিকরগাছা উপজেলার ছোট-পোদেউলিয়া গ্রামের নুরুল হকের ছেলে সালাউদ্দিন (৪২)।

নিহতদের স্বজনরা জানান, মালয়েশিয়ার জোহুরবারু ফ্লরেস্ট সিটিতে টিওআইসি কোম্পানির নির্মানাধীন ৫০ তলা ভবনে লিফটের কাজ করছিল তারা। ৩১ তলায় লিফটের কাজ করার সময় লিফট ছিড়ে চতুর্থ ও দ্বিতীয় তলায় আটকা পড়ে তিনজনই ঘটনাস্থলে মারা যান। ওই ভবনে কর্মরত অন্য শ্রমিকরা ইমার্জেন্সি নম্বর ৯৯৯ টেলিফোনে খবর দিলে ভোর ২টা ৩০ মিনিটে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল থেকে তিন বাংলাদেশীর মরদেহ উদ্ধিার করে।

ইস্কান্দার পিউটারির ডেপুটি চিফ অফ পুলিশ (অপারেশন), সুপারিনটেনডেন্ট ইসমাইল ডালহা জানিয়েছেন, ভবনটির দ্বিতীয় ও চতুর্থ ফ্লোরের উপর আটকা পড়ার পর তিনজনের মৃত্যু হয়। নিহতদের মরদেহ দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য মালয়েশিয়াতে কাজ চলছে বলে জানান স্বজনরা।

বেনাপোলের বাহাদুরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান ও শার্শা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেনও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তারা দ্রুত মরদেহ ফেরত আনার জন্য প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করছেন বলে জানান।

এদিকে মৃত্যুর খবর পেয়ে নিহতদের গ্রামের বাড়িতে যান শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডলসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক ব্যক্তিত্বরা। এসময় ইউএনও দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে খোঁজখবর নেন। এছাড়া মরদেহ বাড়িতে আনতে সরকারিভাবে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে বলে জানান তিনি।

মুসা

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: