৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ১৭ নভেম্বর ২০১৭, ১১:৪৬ অপরাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

দৃষ্টিনন্দন নতুনরূপে সাজছে গুলিস্তান


১০ নভেম্বর ২০১৭ শুক্রবার, ০৮:৪৭  পিএম

ইমদাদুল হাসান রাতুল

নতুনসময়.কম


দৃষ্টিনন্দন নতুনরূপে সাজছে গুলিস্তান

 

সবুজে আচ্ছাদিত ও বাহারি ফুলের নকশায় ফুটপাত ও রোড ডিভাইডারে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। গুলিস্তানসহ কয়েকটি সড়ক চত্বরকেও ফুলসহ বিভিন্ন ধরনের গাছ দিয়ে দৃষ্টিনন্দিত করে সাজানো হচ্ছে।

প্রায় ১১ কোটি টাকা ব্যয়ের এই প্রকল্প আগামী ৭ মাসের মধ্যেই শেষ হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

সরজমিনে গুলিস্তান গোলাপ শাহ মাজারের সামনে দেখা যায়, মাজারের সামনের গোল চক্করটিতে তিনজন শ্রমিক কাজ করছেন। তারা টাইলস বসাচ্ছেন। চক্করটিতে রড দিয়ে তিনটি লম্বা স্থাপনাও তৈরি করা হয়েছে। অবশ্য এগুলোর নির্দিষ্ট কোনো রূপ দেয়া হয়নি।

এদিকে, গুলিস্তান থেকে নগর ভবনমুখী রোড মিডিয়ানে সম্প্রতি গাছ লাগানো হয়েছে।

ডিএসসিসি সূত্রমতে, এগুলো ছাড়াও ইংলিশ রোড, পল্টন, মৎস্য ভবনসহ ডিএসসিসির প্রায় ৩০ কিলোমিটার সড়কের মিডিয়ানের বিভিন্ন জায়গায় কাজ চলছে। যার মধ্য বেশকিছু জায়গার কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে।

গুলিস্তানের রাজধানী হোটেলের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন সাব্বির আহমেদ। নয়াপ্লটনের একটি দোকানে কর্মরত পুরান ঢাকার এই বাসিন্দা বলেন, ‘পল্টনে ফুটপাতে দেখলাম রং ও গাছ লাগানো হয়েছে। এখানে অনেকদিন ধরেই দেখছি কী যেন বানাচ্ছে। গাছ লাগানোর কথা শুনলাম। ভালোই হবে।’

প্রধান প্রকৌশলী ফরাজী শাহাবুদ্দিন আহমেদ নতুন সময়কে বলেন, ‘রোড মিডিয়ান, ফুটপাত ও বিভিন্ন সড়কের চত্বরগুলোতে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ হচ্ছে। গুলিস্তানেও এই কাজ হচ্ছে। ফুলসহ বিভিন্ন ধরনের গাছ লাগানো হবে। এগুলোকে দৃষ্টিনন্দন করে সাজানো হবে।’

এ বিষয়ে ডিএসসিসির অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান নতুন সময়কে বলেন, ‘এখানে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ হচ্ছে। ফুলগাছ লাগানো হবে। রডের লম্বা যে স্থাপনাগুলো আছে, সেখানে গাছ থাকবে, বাগান বিলাস কিংবা পাতা বাহারের মতো। ফুলগাছও থাকবে। ফলে এ সড়কে চলাচলকারী অসংখ্য মানুষ গুলিস্তানে দৃষ্টিনান্দনিকতার দেখা পাবে।

প্রকল্পটি সম্পর্কে জানতে চাইলে আসাদুজ্জামান বলেন, পুরো ডিএসসিসি এলাকার ফুটপাত ও বিভিন্ন চত্বরে এসব কাজ ২০১৬ সালের জুলাই মাসে শুরু হয়। এর ব্যয় ধরা হয়েছে ১১ কোটি টাকা। ইতোমধ্যেই এর আওতায় অনেক কাজ শেষ হয়েছে। গুলিস্তানের কাজও দ্রুত শেষ হবে।

২০১৮ সালের জুনের মধ্যেই পুরো প্রকল্পের কাজ শেষ হবে বলেও জানান এই প্রকৌশলী।

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: