৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, সোমবার ২১ মে ২০১৮, ১:২২ পূর্বাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

ঠাকুরগাঁওয়ে বোরো চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ৩৬ হাজার মেট্রিক টন


১২ মে ২০১৮ শনিবার, ০১:০২  এএম

আজম রেহমান, ঠাকুরগাঁও করেসপন্ডেন্ট

নতুনসময়.কম


ঠাকুরগাঁওয়ে বোরো চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ৩৬ হাজার মেট্রিক টন

ঠাকুরগাঁওয়ের ৫ উপজেলায় বোরো চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩৫ হাজার ৭শ’৫৭ মেট্রিক টন। জেলার ৫ উপজেলায় ২ মে হতে আগামী ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত চুক্তিকারী মিল মালিকদের কাছ থেকে ওই পরিমাণ চাল সংগ্রহ করবে খাদ্য বিভাগ। জেলা খাদ্য বিভাগ ইতোমধ্যে খাদ্য সংগ্রহে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম শুরু করেছে।

লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলায় ১৮ হাজার ৯শ’৫৮ মেট্রিক টন,পীরগঞ্জ উপজেলায় ৬ হাজার ৫শ’১৪ মেট্রিক টন, রানীশংকৈল উপজেলায় ৪ হাজার ৩১ মেট্রিক টন, হরিপুর উপজেলায় ২ হাজার ১শ’৩৬ মেট্রিক টন এবং বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় ৪ হাজার ১শ’১৭ মেট্রিক টন।

এবারে সমগ্র জেলায় মোট হাসকিং মিল ১ হাজার ৬শ’৩৮টি এবং ১৪টি অটো মিল চুক্তিবদ্ধ হতে পারবে। যদিও সরকার ২০১৭ সালে ঘোষণা দিয়েছিল, যেসব হাসকিং মিল মালিক ২০১৬-১৭ সংগ্রহ মওসুমে খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হবে না তাদের পরবর্তী ৪ মওসুম সরকারি গুদামে চাল বিক্রি করতে পারবেন না।

এছাড়াও যেসব হাসকিং মিল মালিক চুক্তিবদ্ধ হয়েও সরকরি খাদ্য গুদামে চাল সরবরাহ করবে না তাদের ২ মওসুমের জন্য চুক্তি থেকে বিরত রাখা হবে। কিন্তু সরকার শেষ পর্যন্ত তার নিজের সিদ্ধান্ত থেকে নিজেই সরে এসেছেন।

এবার বোরো মওসুমে সকল মিল মালিকদের জন্য চুক্তির দরজা উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। এতে বিগত সময়ে খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চুক্তি করে লাভের মুখ দেখতে পারেন নি এমন মিল মালিকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

গত ২ মে থেকে ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত সংগ্রহের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ বাবুল হোসেন জানান, এ বছর জেলার প্রায় সকল মিল মালিক চাল সরবরাহের জন্য খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার সুযোগ পাবেন। জেলায় মোট ১ হাজার ৮শ’৩২টি হাসকিং ও অটো মিল থাকলেও গতবছর ১শ’৮০ জন মিল মালিক তাদের লাইসেন্স নবায়ন না করায় তারা চুক্তিবদ্ধ হওযার সুযোগ পাচ্ছেন না। চুক্তিবদ্ধ হতে পারবেন এমন মিলের সংখ্যা ১ হাজার ৬শ’৫২ টি। ইতিমধ্যে মিলারগণ খাদ্য বিভাগের সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে শুরু করেছেন। উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বিপ্ল¬ব কুমার জানান, ৩৮ টাকা কেজি দরে মিলারদের কাছ থেকে সিদ্ধ চাল সংগ্রহ করা হবে এবং দ্রুতই সংগ্রহ অভিযান শুরু করা হবে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ঠাকুরগাঁওয়ের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আফতাব হোসেন জানান, চলতি বোরো মৌসুমে জেলায় ৬৩ হাজার ৬শ’৮০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। আর বোরো রোপনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৫৯ হাজার ১শ’৮০ হেক্টর জমিতে। বোরো আবাদে এ জেলা লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করেছে। জেলায় এবার চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ৪১ হাজার ৩৬ মেট্রিক টন।

তিনি আরো জানান, মাঠ পর্যায়ে কৃষকরা ধান কাটা শুরু করেছেন। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ১০ ভাগ ধান কাটা সম্পন্ন হয়েছে। এ মাসের মধ্যেই ধান কাটা শেস হবে বলে মনে করছে কৃষি বিভাগ।

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: