৭ শ্রাবণ ১৪২৫, রবিবার ২২ জুলাই ২০১৮, ৬:৪৩ পূর্বাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

কোন রাশির নারী বিয়ে করবেন?


২৬ জুন ২০১৮ মঙ্গলবার, ০৫:৪৬  পিএম

নতুনসময়.কম


কোন রাশির নারী বিয়ে করবেন?

রাশি নিয়ে অনেকে নারী-পুরুষের আগ্রহ রয়েছে। হয়তো রাশিচক্রের ব্যাপারে কমবেশি সবাই জানেন। কেউ কন্যা রাশির জাতক তো কেউ আবার কর্কট রাশির জাতিকা।

তবে রাশি যেটাই হোক, সকল রাশির জাতক-জাতিকাদের আছে ভিন্ন ভিন্ন চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য। কারো রাগ বেশি তো আবার কারো মাথা খুব ঠাণ্ডা। করো মন শিশুরদের মত, আবার কেউ কঠিন মনের মানুষ।

রাশিগত কারণে চারিত্রিক একজন নারী ও পুরুষের আচারণ ভিন্নতা রয়েছে। তবে বিয়ের সময় রক্তের গ্রুপ, বয়স, শিক্ষাগত যোগ্যতা, কথা, চেহারা বিভিন্ন বিষয় হয়তো আপনি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। তবে জানেন কি বিয়ের ক্ষেত্রে রাশি বিষয়টি জেনে রাখা ভালো।

জ্যোতিষীরা বলে থাকেন, মনের মানুষ- সবকিছুই আগাম পূর্বাভাস পাওয়া আছে রাশিফলের বিচারে। রাশিফলের বিচারে কোন রাশির জাতিকারা হয়ে থাকেন দারুণ স্ত্রী। এমন কাউকে বিয়ে করলে নিঃসন্দেহে বদলে যাবে জীবন।

আসুন জেনে নেই কোন রাশির নারীরা স্ত্রী হিসেবে ভালো

কর্কট (২২ জুন হতে ২২ জুলাই): এই রাশির জাতিকারা হয়ে থাকেন শান্তিপ্রিয়। সংসার ও জীবনে সবকিছু টিপটপ রাখতে তারা খুব ভালোবাসেন। তারা ঠাণ্ডা মাথার, বড় বিপদেও উতলা হয়ে পড়েন না বা সঙ্গীকে ছেড়ে যান না। সঙ্গীর দেখাশোনা করা, অনেক বড় অন্যায়কেও ক্ষমা করতে পারা কর্কট স্ত্রীদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। তাই একদম নিশ্চিত, মজবুত দাম্পত্য চাইলে কর্কট কন্যারা হচ্ছে সেরা। কর্কট নারী স্ত্রী হিসেবে সহজ ও সাবলীল।

কন্যা (২৩ আগস্ট থেকে ২২ সেপ্টেম্বর): দেখে মনে না হলেও কন্যা রাশির জাতিকারা দারুণ স্ত্রী হয়ে থাকেন। সুখে-দুঃখে সবসময়ে তারা সঙ্গীর পাশে থাকেন। সঙ্গীর সাথে সমানে সমানে সংসারের সব দায়িত্ব পালন করে থাকেন। একদিকে তারা যেমন দায়িত্বশীল ও নরম মনের মা, অন্যদিকে আনন্দপ্রিয় স্ত্রী। বিপদের সময়ে সঙ্গীর পাশে থাকা তাঁদের বড় বৈশিষ্ট্য এবং এরা কখনো সঙ্গীকে আঘাত করে কথা বলেন না। সকলের সামনে সঙ্গীর সম্মান বৃদ্ধি করাতেই তাঁদের আনন্দ।

তুলা (২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ২২ অক্টোবর): এই রাশির জাতিকারা আমুদে ও সামাজিক। ঘর ও বাহির দুটোই সামাল দিতে তাঁদের জুড়ি নেই। তারা মিষ্টভাষী, ফলে স্বামীর যোগ্য সঙ্গিনী হয়ে থাকেন। তারা জানেন কীভাবে সমস্যার সময়ে মাথা ঠাণ্ডা রেখে সমাধানের চেষ্টা করতে হয়। সঙ্গীর বাজে ব্যবহারেও তারা ধৈর্যহারা হন না, অনেক বড় অপরাধও ক্ষমা করে দিতে পারেন। তুলা জাতিকাদের কাছে অর্থের চাইতে ভালোবাসা বড়। সঙ্গীর কাছ থেকে তারা পর্যাপ্ত সম্মান ও ভালোবাসা আশা করেন তারা আর সেটা পেলেই সন্তুষ্ট তুলা জাতিকারা। সন্তানদেরও একই মূল্যবোধ দিয়ে বড় করে তোলেন।

বৃষ (২০ এপ্রিল থেকে ২১ মে): এই রাশির নারীরা দারুণ আত্মবিশ্বাসী ও একরোখা। একই সাথে ভালোবাসার পুরুষকে বারবার পরীক্ষা করতেও তারা ভালোবাসেন। এদের সাথে সংসার করা খুবই কঠিন, কেননা তারা সর্বদা ভালোবাসা ও সময় দাবী করে। কিন্তু কোন পুরুষ যদি ধৈর্য নিয়ে সঙ্গে থেকে যান ও বৃষ নারীর ভালোবাসার পরীক্ষায় পাশ করতে পারেন, তাহলে জীবন হয়ে উঠবে স্বর্গ। গভীর ভালোবাসা কখনোই প্রতারণা করেন না, পরকীয়া তাঁদের কাছে ঘৃণিত। অন্যদিকে প্রতারিত হলে নেন কঠোর প্রতিশোধ। স্বামী-সংসার নিয়েই তাঁদের জীবন আবর্তিত, ভালোবাসেন আদর্শ সংসার গড়ে তুলতে। বৃষ নারীরা চমৎকার রাঁধতে জানেন এবং মিষ্টি রুচিবোধের জন্য অনন্যা। প্রেমের ক্ষেত্রে তারা অত্যন্ত রোমান্টিক। সন্তানপালন সহ সব দিকেই পটু অসম্ভব বুদ্ধিমতী এই জাতিকারা।

বৃশ্চিক (২৩ অক্টোবর থেকে ২২ নভেম্বর): একটু মুখচোরা বা পিছিয়ে পড়া পুরুষের জন্য বৃশ্চিক নারীরা দারুণ স্ত্রী প্রমাণিত হয়ে থাকেন। এরা স্বনির্ভর ও আত্মবিশ্বাসী। কোন কিছুর জন্যেই কারো ওপরে নির্ভর করা পছন্দ করেন না। ফলে স্বামীর ওপরে কোন দিক দিয়ে তারা বোঝা নন। তারা আবেগী ও সৌন্দর্যপ্রিয়, কিন্তু জানেন পৃথিবীকে কীভাবে সামাল দিতে হয়। সংসারের রণভূমিতে সঠিক কৌশলের অভাব তাঁদের কখনো হয় না। সন্তানদের সঠিক পরিবেশে বড় করতে তারা সিদ্ধহস্ত।

এমএ

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: