৪ পৌষ ১৪২৪, মঙ্গলবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭, ২:১০ পূর্বাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

আত্মহত্যার ভয়ঙ্কর জঙ্গল


১৯ জুন ২০১৭ সোমবার, ০৬:০৯  পিএম

নতুনসময়.কম


আত্মহত্যার ভয়ঙ্কর জঙ্গল

পেছনেই রয়েছে মাউন্ট ফুজি, আর তার ঠিক নীচেই ছড়িয়ে রয়েছে বিস্তৃত সবুজ ভূমি। দূর থেকে তাকে দেখলে মনে হবে, এ এক অপার সৌন্দর্য। ইচ্ছে করবে বুক ভরে একটু নিঃশ্বাস নিতে। তবে জায়গাটা অন্য কিছু, অন্যরকম। এখানের সবুজ আপনাকে জীবন দেয় না, এক অদৃশ্য আকর্ষণে টেনে নেয় মৃত্যুপুরিতে। স্বাগত আপনাকে। মৃত্যুর উপত্যকায়।

জাপানে মাউন্ট ফুজি পাহাড়ের পদদেশে রয়েছে যে বিস্তৃত জঙ্গল, তার নাম আওকিঘারা ফরেস্ট। প্রতি বছরই এখান থেকে একাধিক লাশ, দেহাবশেষ উদ্ধার করে পুলিশ। তাই এই জঙ্গলটিই পৃথিবীর অন্যতম সুইসাইড স্পট হিসেবে কুখ্যাত।

শুধু কি দেহ বা দেহাবশেষ? পুলিশের বক্তব্য, জঙ্গলের গভীরে কঙ্কালের ভিড় লেগে রয়েছে। গাছ এবং জংলার আড়ালে লুকিয়ে রয়েছে তারা। বছরের পর বছর, যুগের পর যুগ।
বলা বাহুল্য, এটিই জাপানের সবথেকে ভূতুড়ে জায়গা। গতবারতো এই জঙ্গল নিয়ে ছবিও করছে হলিউড। তবে জঙ্গলে শ্যুটিং করার অনুমতি মেলেনি।
কিন্তু কেন এই জঙ্গলকেই আত্মহত্যার জন্য বেছে নেন মানুষ? জাপানিদের বক্তব্য, ১৬ বর্গমাইল দীর্ঘ এই জঙ্গলে বাস অশরীরীদের। তারাই ডেকে আনে জীবিত মানুষকে। ইউরেই নামে সেই অশরীরীর ডাকও নাকি জঙ্গলের ভিতর থেকে শোনা যায়।

জাপানের বিভিন্ন মনস্তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা কী বলছে, জানেন? বলা হয়, ফুজির পায়ের কাছে নিজেকে বলিদান দেওয়ার রীতি হয়তো কখনো ছিল। সেখান থেকেই এই ধারা চলে আসছে। আগে যা ছিল আত্মবলিদান, পরে তা-ই পাল্টে আত্মহত্যায় দাঁড়িয়েছে।

দ্যা জাপান টাইমস এর তথ্য মতে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত গড়ে ৩০ জন করে বছরে আত্মহত্যা করতেন। কিন্তু ২০০৪ সাল নাগাদ এই সংখ্যাটাই বে়ড়ে দাঁড়ায় ১০৮-এ। ২০১০ সালে ২৪৭জন আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন, ৫৭ জন মারা গেছেন।

ইতোমধ্যে আত্মহত্যায় কারণে প্রশাসন জঙ্গলের বিভিন্ন জায়গায় পোস্টারও লাগিয়েছে। ‘আপনার জীবন মূল্যবান’, ‘আত্মহত্যার আগে বাড়ির লোকের সঙ্গে কথা বলুন’, ‘প্রিয়জনের মুখগুলো দয়া করে মনে করুন’-এমনই সব কথাবার্তা লেখা রয়েছে তাতে।
তবে এটা মনে রাখা প্রয়োজন, জাপানীরা আত্মহত্যাকে ‘পাপ’ মনে করেন না।

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: