৪ আষাঢ় ১৪২৫, সোমবার ১৮ জুন ২০১৮, ৫:২৭ অপরাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Natun Somoy logo

‘অ্যান্টিবায়োটিক হোক সঠিক’


১৩ মার্চ ২০১৮ মঙ্গলবার, ০৬:৪৬  পিএম

নতুনসময়.কম


‘অ্যান্টিবায়োটিক হোক সঠিক’

দৈনন্দিন কর্মব্যস্ত জীবনে বিভিন্ন রোগ শোকে বর্তমান প্রজন্মের একটি ভরসার স্থানে পরিণত হয়েছে অ্যান্টিবায়োটিক ঔষুধ। তাই, অ্যান্টিবায়োটিকের সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ডেমোক্রেসি ওয়াচের কো-অর্ডিনেটর এবং ব্রিটিশ কাউন্সিলের ফ্যাসিলিটেটর, ফাতেমাতুল বতুলের তত্ত্বাবধানে কিছু একটিভ সিটিজেনের নেতৃত্বে ‘অ্যান্টিবায়োটিক হোক সঠিক’ নামে একটি সামাজিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়।

যার মূল উদ্দেশ্য ছিল অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার সম্পর্কে সবাইকে সচেতন করা এবং এর অপব্যবহার বন্ধ করে সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করা। গত ১০ ই মার্চ অ্যাকটিভ সিটিজেন রিজিওনাল অ্যাচিভারস সামিট ২০১৮ তে এ মোট ১৮ টি সামাজিক উদ্যোগের মধ্যে এটি তৃতীয় স্থান অধিকার করে। সামিটটি উদ্বোধন করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ডেপুটি ব্রিটিশ হাইকমিশনার জনাব কানবার হুসেন বোর।

অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্রিটিশ কাউন্সিলের কান্ট্রি ডিরেক্টর বারবারা উইকহেম এবং ইউএসএইআইডি-ডিএফআইডি এনজিও হেলথ সার্ভিস ডেলিভারি প্রকল্পের সাবেক চিফ অব পার্টি ডা. হালিদা হানম আক্তার। সভাপতিত্ব করেছেন ‘দি হাঙ্গার প্রজেক্ট’-এর গ্লোবাল ভাইস প্রেসিডেন্ট ও কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. বদিউল আলম মজুমদার। দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এই সামিটে ৩৫০ জনের বেশি তরুণ-তরুণী ও দর্শনার্থী উপস্থিত ছিলেন। সামিটে অ্যাকটিভ সিটিজেনস ইয়ুথ লিডাররা স্টলের মাধ্যমে তাদের গৃহীত সামাজিক উদ্যোগগুলো প্রদর্শন করেন।

উদ্যোগটির এ অর্জনের পেছনের যেসকল অ্যাকটিভ সিটিজেন রয়েছেন, তাদের মধ্যে প্রান্তিকা সিনহা, সাদিয়া বিনতে জামান, ডালিয়া আক্তার, আল মারুফ তোফায়েল, ফজলে রাব্বি, সাজিয়া জেবা, মতিউর রহমান, রাফা রহমান অন্যতম ছিলেন।গত বছর অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া এ সামাজিক উদ্যোগটি ২০১৮ সালে ইন্টারন্যাশনাল স্টাডি ভিসিটে শ্রীলংকাতে উপস্থাপন করা হয়েছিল।

সেখানে এক পরিসংখ্যানে দেখানো হয় যে, পরিবেশ বিষয়ক সংগঠন,পরিবেশ বাচাও আন্দোলন ( পবা) এর মতে, ঢাকা শহরে প্রায় ৫৫.৭০% মানুষ অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্টেন্স হয়ে গিয়েছেন। জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষনায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশে হাসপাতালগুলোতে ভর্তিকৃত ৫০ ভাগ রোগী অপ্রয়োজনীয় অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহন করে। এবং এসব কারণে গড়ে প্রতি বছর ৩০০০ কোটি টাকার ঔষুধ অপচয় হয়।মূলত, তরুন ছাত্র ছাত্রীদের মাধ্যমে সমাজের সর্বস্তরের মানুষদের অ্যান্টিবায়োটিক সচেতন করে তোলাই এ প্রকল্পের উদ্দেশ্য।

মুসা

নতুনসময়.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন: